শিরোনামহীন গল্প

Advertisements

স্বপ্নের পদ্মা সেতু এবং দক্ষিণ বাংলার স্বপ্ন

একটি স্বপ্ন সত্যি হলে পাল্টে যেত বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা। আমরা স্বপ্ন দেখি সোনার বাংলাদেশ গরব। বিশ্বের সবাইকে তাক লাগিয়ে দেব। আমার স্বপ্ন কি সত্যি হবে। আজও দখিন বাংলার উন্নয়ন এ বাধা। উন্নয়ন সম্ভবনাময় এলাকা দক্ষিণ বাংলা বাংলাদেশের অন্য সকল এলাকা থেকে পিছিয়ে পরছে শুধু মাত্র যোগাযোগ ব্যবস্থার করুন পরিস্থিতির জন্য। শুধু মাত্র পদ্মা সেতু ই পাল্টে দিতে পারে এ এলাকার চিত্র।

দক্ষিণ বাংলার মানুশের একটি মাত্র চাওয়া পদ্মা সেতু। মাননীয় প্রধান মন্তী আপনি তো আমাদের স্বপ্ন দেখিয়েছেন, এবার স্বপ্ন সত্যি করুন। আপনার মন্তীসভার দু’এক জন লোকের জন্য তো আমাদের স্বপ্ন ভেঙ্গে যেতে পারে না।আজ আমরা বিশ্ব ব্যাংকের সাহায্য থেকে দুরে সরে গেছি। দেশের জনগনের কষ্টের রোজগারের টাকা দিয়ে কাজ শুরু করব। কিন্তু শেষ করতে পারব কি???  আমরা এখন কি অনিশ্চয়তায় ভুগছি না???

দুর্নীতিতে যত টাকা নস্ঠ হচ্ছে, বিদেশে যে টাকা চলে যাচ্ছে, মানি লন্ডারিং হচ্ছে, তিন বছরে নাম পাল্টাতে যা খরচ হয়েছে, বিভিন্ন নিয়োগ এ যে কোটি কোটি টাকা উপর মহলে যাচ্চে, এছারা কালো টাকা, এবং বেআইনি ভাবে যে সকল টাকা লেনদেন হচ্চে এ টাকা সংগ্রহ করে সব একত্রে করে কি কাজ শুরু করা যেত না? আজ বিশ্বব্যাংক ঋন দেয়নি, তাতে আমাদের কোনো সম্যসা ই হতো না।আমরা নিজেদের টাকা দিয়েই পেতে পারতাম স্বপ্নের পদ্মা সেতু। যাইহোক স্বপ্ন তো সত্যির পথে। মাননীয় প্রধান মন্তী তো আমাদের কম আশ্বাস দিলেন না।স্বপ্ন কম দেখালেন না।আমরা আপনার প্রতিটি কাজের সাথে আছি থাকবো। তারপর ও যদি পদ্মা সেতু পাই,

দেশে তো নেতার অভাব নাই, আছে যোগ্য নেতৃত্বের অভাব। আপনি যদি নিযেকে সফল দাবী করেন, আমাদের দিয়ে দেখান আপনি সফল। আমরা তো আপনাকে সুযোগ দিলাম।

বড় বড় কথা বললে তো আর দেশ চলবে না। দেশের বড়বড় রাজনৈতিক দল, দলের নেতারা তো আর কম বলে নাই ।কাজ দেখতে চাই। দেশের জনগনদের একটু শান্তি দিন। তারা আপনাদের সাথে থাকবে।

যেকোন মূলো স্বপ্নের সেতু চাই। বঙ্গবন্ধুর জন্মভূমি টুঙ্গিপারার সাথে সরাসরি  যোগাযোগ থাকুক দেশের প্রতিটি এলাকার সাথে। দক্ষিণ বাংলার জনগনের কষ্ট লাঘোব হোক।

ভালবাসা, প্রেম, বিবাহ ও নারী সম্পর্কে- গুণীজন কত কি বলেরে!!!

# পরস্পর পরস্পরের জুলুম ঘাড় পেতে বহন করবে, এইজন্য তো বিবাহ ।
-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

# স্ত্রীর সঙ্গে বীরত্ব করে লাভ কি? আঘাত করলেও কষ্ট, আঘাত পেলেও কষ্ট। :P
-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

# মেয়েরা অল্প কারণে কাদতে জানে এবং বিনা কারণে হাসতে পারে, কারণ ব্যতীত কার্য হয় না, জগতের এই কড়া নিয়মটা কেবল পুরুষের পক্ষেই খাটে ।
-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

# গরিব লোক যদি ধনী বিয়ে করে তাহলে সে স্ত্রী পায় না, পায় একজন শাসক । :D :D
-আলেকজেনড্রেডেস

# মন আর ঘড় ভাঙতে স্ত্রীলোক যত পটু, পুরুষ তত নয় । -চারুচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়

# নারী হেসে উঠার আগ পর্যন্ত পৃথিবী ছিল বিষন্ন, বাগান ছিল জঙ্গল আর পুরুষ ছিল সন্ন্যাসী।
– ক্যাম্পবল।

# মেয়ে মানুষ চিনেছেন বলে অহংকার করবেন না, কেননা আপনি জানেন না আর একটি মেয়ে আপনাকে কি শিক্ষা দেবে। – জিলেন বাগেন।

# বিয়ে একটি জুয়া খেলা – পুরুষ বাজী রাখে স্বাধীনতা আর নারী বাজী রাখে সুখ।
– মাদ সোয়াজেন।

# বিবাহর সময় বাহ্যিক সৌণ্দের্যে ভুলোনা , অন্তরের সৌন্দর্যের সন্ধান নাও।
– আর,বি,লান্ডারস

# মেয়েরা বিয়ের আগে কান্নাকাটি করে আর ছেলেরা করে বিয়ের পরে।
– একটি পোলিশ প্রবাদ

# প্রেমের মদ্ধে ভয় না থাকলে রস নিবিড় হয়না।
– রবী ঠাকুর (অরুপ রতন)

# প্রথমে যদি কাউকে খারাপ লাগে , তবে নির্ঘাত তাকে ভাল লাগবে পরে।
-দয়ভস্কি

# যখন কোন পুরুষ কোন নারীকে ভালবাসে, তখন সে তার জন্য সব কিছু করতে পারে। কেবল তাকে ভালবেসে যেতে পারেনা।
– অস্কার ওয়াইল্ড

# জীবনে দুটো জিনিস খুবই কষ্টদায়ক।। একটি হচ্ছে, যখন তোমার ভালোবাসার মানুষ তোমাকে ভালোবাসে কিন্তু তা তোমাকে বলে না।। আর অপরটি হচ্ছে, যখন তোমার ভালোবাসার মানুষ তোমাকে ভালোবাসে না এবং সেটা তোমাকে সরাসরি বলে দেয়।
-সেক্সপিয়ার

# তুমি যদি কাউকে ভালোবাস,তবে তাকে ছেড়ে দাও।যদি সে তোমার কাছে ফিরে আসে,তবে সে তোমারই ছিল।আর যদি ফিরে না আসে,তবে সে কখনই তোমার ছিল না।
-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

# আর্থিক সচ্ছলতা বন্ধু আনে, কিন্তু ভালোবাসা আনে না ।
-জোসেফ কনরাড

# সোনায় যেমন একটু পানি মিশিয়ে না নিলে গহনা মজবুত হয় না, সেইরকম ভালবাসার সঙ্গে একটু শ্রদ্ধা, ভক্তি না মিশালে সে ভালবাসাও দীর্ঘস্থায়ী হয় না।
-নিমাই ভট্টাচার্যImage

প্রথম দর্শনে প্রেম

আপনি কি প্রথম দর্শনে প্রেমে বিশ্বাস করেন, নাকি আরেকবার ঘুরে আসতে চান? প্রথম দর্শনে প্রেম কারও কাছে কল্পনা আবার কারও কাছে স্বপ্ন! কিš‘ প্রথম দর্শনের প্রকাশভঙ্গিই হয়ে উঠতে পারে আপনার পছন্দের মানুষকে কাছে টেনে নেওয়ার মোক্ষম মুহূর্ত! প্রথম পরিচয়েই চট করে কাউকে কাছে পাওয়া খুব সহজ কিছু নয়Ñ কিš‘ চোখের মায়ামাখা আকুলতা, বর্ণিল পোশাক আর নিখুঁত বাচনভঙ্গির উপস্থাপনা আপনাকে করে তুলতে পারে আকর্ষণীয়া-অপরূপা। প্রথম দর্শনে নারীর রূপ-রহস্যের কোন দিকগুলো পুরুষকে আকৃষ্ট করে
খোলা চুলের যাদুImage

নতুন ফ্রিল্যান্সারদের জন্য কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ টিপস

* প্রথম কাজ পেতে কয়েক সপ্তাহ থেকে শুরু করে কয়েক মাস পর্যন্ত সময় লেগে যেতে পারে, তাই হতাশ না হয়ে ধৈর্য্য ধরে বিড (Bid) করে যেতে হবে।
* প্রথম দিকে যত কম মূল্যে বিড করা হবে কাজ পাবার সম্ভাবনাও তত বেশি হবে।
* সম্ভব হলে বিড করার পূর্বেই যদি কাজটি সম্পন্ন করে ক্লায়েন্টে দেখানো যায় এবং আপনার কাজটি যদি সে পছন্দ করে তাহলে নিশ্চিতভাবে প্রজেক্টটি আপনাকেই দিবে।
* কোন কাজ না পারলে সেই প্রজেক্টে কখনই বিড করা উচিত নয়। অনেকেই না বুঝে বিড করে থাকেন এবং ভাবেন কাজটি পেলে অন্য কারো সাহায্য নিয়ে সম্পন্ন করে ফেলবেন। কাজ না জেনে খুব বেশি দূর যাওয়া সম্ভব নয়।
* ইন্টারনেটে অসংখ্য ধরনের কাজ পাওয়া যায়। আপনি যে কাজই করে থাকুন না কেন, চেষ্টা করবেন যাতে পরিপূর্ণভাব সেই কাজে আগে দক্ষ হয়ে তারপর কাজের জন্য আবেদন করা।
* সাধারণত যে সকল কাজ তুলনামূলকভাবে একটু কঠিন এবং যে সকল কাজে কম বিড পড়ে, সেধরনের কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। তাই ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার পূর্বে সব ধরনের কাজ একটু পর্যবেক্ষণ করে নিন এবং সে অনুযায়ী নিজেকে তৈরি করে নিন।
* বলাই বাহুল্য আউটসোর্সিং এর কাজ করতে ইংরেজীতে পারদর্শী হওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। অন্তত প্রজেক্টের চাহিদা বুঝা এবং সে অনুযায়ী ক্লায়েন্টের সাথে সাবলীলভাবে যোগাযোগ করার ক্ষমতা থাকা প্রয়োজন।
* একটি প্রজেক্ট সম্পর্কে পূর্ণাঙ্গ ধারণা না নিয়ে কখনই কাজ শুরু করা উচিত নয়। ক্লায়েন্ট তাদের চাহিদা বিড রিকোয়েস্টের সাথে সম্পূর্ণভাবে উল্লেখ নাও করতে পারে। তাই যতটুকু সম্ভব তাদেরকে প্রশ্ন করুন। তারপর প্রজেক্টের রিকোয়ারমেন্ট আপনার নিজের ভাষায় বায়ারকে লিখে জানান। এতে বায়ারের চাহিদা সম্পর্কে আপনি নিশ্চিত হতে পারবেন এবং কাজ করার সময় আপনার পরিশ্রম অনেকখানি কমে যাবে। প্রশ্ন করলে বায়ার খুশি হয় এবং আপনার আগ্রহ সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারে।
* সম্পূর্ণ কাজকে কয়েকটি ধাপে ভাগ করুন এবং প্রতিটি ধাপ শেষ হবার পর পর ক্লায়েন্টকে দেখান।
* ডেডলাইন সময় শেষ হবার পূর্বেই সম্পূর্ণ কাজ সম্পন্ন করুন এবং ক্লায়েন্টের কাছে পাঠিয়ে দিন।
* ক্লায়েন্টের কাছে কাজ পাঠানোর পূর্বে ভাল করে রিকোয়ারমেন্ট আরেকবার দেখে নিন এবং সম্পূর্ণ কাজ ভাল করে পরীক্ষা করুন।
* সব সময় চেষ্টা করবেন যাতে কাজ শেষে সর্বোচ্চ রেটিং পাওয়া যায়। ভাল রেটিং পেলে পরবর্তী কাজগুলো খুব সহজেই পাওয়া যায়।
* ভাল রেটিং পাবার উপায় হচ্ছে – সঠিকভাবে কাজটি করা, সময়মত কাজটি শেষ করা, ক্লায়েন্টের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখা।
* রেটিং দেবার পূর্বে ক্লায়েন্টকে জিজ্ঞেস করে নিন যে সে আপনার কাজে সম্পূর্ণ খুশি কিনা এবং আপনাকে সর্বোচ্চ রেটিং দিতে যাচ্ছে কিনা।
* কাজে এবং কথাবার্তায় সবসময় সৎ থাকতে হবে। কখনও ভুল তথ্য প্রদান করা যাবে না। কোন কারনে কাজ করতে না পারলে বিষয়টি ক্লায়েন্টকে পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দিন, বেশিভাগ ক্ষেত্রেই ক্লায়েন্টের কাছ থেকে যথাযথ সহায়তা পাওয়া যায়।Image